فَإِنَّمَا يَسَّرْنَاهُ بِلِسَانِكَ لَعَلَّهُمْ يَتَذَكَّرُونَ

ফা ইন্নামা ইসসারনাহু বিলিসানিকা লাআল্লাহুম ইয়াতাযাক্কারুন

ফাইন্নামা – অত:পর নিশ্চই

ইয়াসসারনাহু – আমরা সহজ করেছি এটিকে (কুরআনকে)

বিলিসানিকা – আপনার জবানে / জিহ্বায় / ভাষায়

লাআল্লাহুম – যেন তারা (মানুষ)

ইয়াতাযাক্কারুন – সচেতন হয়, স্মরণ করতে পারে, হুশে আসতে পারে

আমি আপনার ভাষায় কোরআনকে খুব সহজ করে দিয়েছি …

কোন কিছুর বোধগম্যতা, সহজ হয়ে মননে ধরা দেওয়ার পেছনে বোধগম্য ভাষা একটি মূল ভূমিকা পালন করে।

আল্লাহ নবীকে বলছেন যে আল্লাহ তার জিহ্বায় (লিসানে) এই কুরআনকে সহজ করে দিয়েছেন… ‘বি লিসানিকা’ শব্দটি এখানে খেয়াল করার মতো।

আল্লাহ কেবল সহজ করে দিয়েছেন না বলে, বলছেন, জবানে সহজ করে দিয়েছে, জিহ্বায় সহজ করে দিয়েছেন …

আমরা যারা কুরআনের সাথে সম্পর্ক করতে চাচ্ছি, বুঝতে চাচ্ছি তাদের জন্য এটা গুরুত্বপূর্ণ আয়াত, শিক্ষা … যার জন্য যে ভাষা আল্লাহ সহজ করেছেন, সেই ভাষাতে স্রষ্টার এই বাণীর প্রকাশকে আমাদের জন্য বোঝা জরুরী।

অবশ্যই মূল ভাষার কোন বিকল্প নেই, কিন্তু সহজ করার যে তাকিদ – সেই সহজ হওযার শর্তপূরনের উদ্দেশ্য – যার জন্য যে ভাষা সহজ সেখান থেকে শুরু করার মধ্যে একটি হিকমত রয়েছে – সেই হিকমত হলো কুরআন নাযিলের যে কারনগুলো – যেন মানুষ উপদেশ গ্রহন করে, হিদায়াত পায়, যেন মানুষ মনে রাখতে পারে আল্লাহর বিধান, সুবিচারের মানদন্ড স্থাপন করতে পারে, জীবন পরিচালনা করতে পারে, উপদেশ গ্রহন – সেই মূল উদ্দেশ্যগুলো সফল করা যেতে পারে। নাযিলকৃত বাণীর অর্থ বোঝা ছাড়া সেই উদ্দেশ্য কখনোই পুরনের নয়।

আল্লাহ আমাদের জ্ঞানকে উত্তর উত্তর বৃদ্ধি করুন এবং কুরআনকে আরো সহজে বোঝার ও পালনের তওফিক দান করুন।

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।