কোরআনে ‘অধিকাংশ ব্যক্তি’ সম্পর্কে যা বলা হয়েছে:

১। অধিকাংশই বিশ্বাস করে না। আল বাক্বারাহ ২/১০০

২। মানুষের মধ্যে অধিকাংশই নাফরমান। আল মায়েদা ৫/৪৯

৩। তাদের অধিকাংশেরই বিবেক বুদ্ধি নেই। মায়েদাহ ৫/১০৩

৪। কিন্তু তাদের অধিকাংশই জানে না। আল আনআম ৬/৩৭

৫। কিন্তু তাদের অধিকাংশই মুর্খ। আল আনআম ৬/১১১

৭। আপনি তাদের অধিকাংশকে কৃতজ্ঞ পাবেন না। আল আ’রাফ ৭/১৭

৮। আর তাদের অধিকাংশ লোককেই আমি প্রতিজ্ঞা বাস্তবায়নকারীরূপে পাইনি; বরং তাদের অধিকাংশকে পেয়েছি হুকুম অমান্যকারী । আল আ’রাফ ৭/১০২

৯। অধিকাংশই জানে না। আল আ’রাফ ৭/১৩১

১০। কিন্তু তাদের অধিকাংশই সে বিষয়ে অবহিত নয়। আল আনফাল ৮/৩৪

১১। তাদের অধিকাংশ প্রতিশ্রুতি ভঙ্গকারী। আত তাওবাহ ৯/৮

১২। তাদের অধিকাংশই শুধু আন্দাজ-অনুমানের উপর চলে, অথচ আন্দাজ-অনুমান সত্যের বেলায় কোন কাজেই আসে না। ইউনুস ১০/৩৬

১৩। কিন্তু অধিকাংশ লোক তা জানে না। ইউসুফ, ১২/২১

১৪। অধিকাংশ মানুষ প্রকৃত ব্যাপার সম্পর্কে অবগত নয়। ইউসুফ, ১২/৬৮

১৫। আপনি যতই চান না কেন, অধিকাংশই বিশ্বাসী নয়। ইউসুফ, ১২/১০৩

১৬। অধিকাংশ মানুষ আল্লাহ্‌র প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করে, কিন্তু সাথে সাথে শিরকও করে। ইউসুফ, ১২/১০৬

১৭। অধিকাংশ মানুষ এতে বিশ্বাস করে না। রাদ, ১৩/১

১৮। তারা আল্লাহর অনুগ্রহ চিনে, এরপর অস্বীকার করে এবং তাদের অধিকাংশই অকৃতজ্ঞ। নাহল, ১৬/৮৩

১৯। তাদের অধিকাংশ লোকই জানে না। নাহল, ১৬/১০১

২০। কিন্তু অধিকাংশ লোক অস্বীকার না করে থাকেনি। বনী ইসরাঈল, ১৭/৮৯

২১। বরং তাদের অধিকাংশই সত্য জানে না; অতএব তারা টালবাহানা করে। আম্বিয়া, ২১/২৪

২২। তাদের অধিকাংশ সত্যকে অপছন্দ করে। আল মুমিনূন, ২৩/৭০

২৩। আপনি কি মনে করেন যে, তাদের অধিকাংশ শোনে অথবা বোঝে? তারা তো চতুস্পদ জন্তুর মত; বরং আরও পথভ্রান্ত। আল ফুরকান, ২৫/৪৪

২৪। কিন্তু তাদের অধিকাংশই বিশ্বাসী নয়। সূরা আশ শো’আরা, ২৬/৮

২৫। তাদের অধিকাংশই মিথ্যাবাদী। আশ শো’আরা, ২৬/২২৩

২৬। তাদের অধিকাংশই জানে না। নমল, ২৭/৬১

২৭। কিন্তু তাদের অধিকাংশই জানে না। আল কাসাস, ২৮/৫৭

২৮। কিন্তু তাদের অধিকাংশই তা বোঝে না। আল আনকাবুত, ২৯/৬৩

২৯। তাদের অধিকাংশই জ্ঞান রাখে না। আর রূম, ৩০/৬

৩০। তাদের অধিকাংশই জ্ঞান রাখে না। লোকমান, ৩১/২৫

৩২। তাদের অধিকাংশের জন্যে শাস্তির বিষয় অবধারিত হয়েছে। সুতরাং তারা বিশ্বাস স্থাপন করবে না। ইয়াসীন, ৩৬/৭

৩৩। তাদের পূর্বেও অগ্রবর্তীদের অধিকাংশ বিপথগামী হয়েছিল। আস সাফফাত, ৩৭/৭১

৩৬। অতঃপর তাদের অধিকাংশই মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে, তারা শুনে না। সূরা হামীম সেজদাহ, ৪১/৪

৩৭। আমি তোমাদের কাছে সত্যধর্ম পৌঁছিয়েছি; কিন্তু তোমাদের অধিকাংশই সত্যধর্মে নিস্পৃহ! যুখরুফ, ৪৩/৭৮

৩৯। আপনি বলুন, আল্লাহই তোমাদেরকে জীবন দান করেন, অতঃপর মৃত্যু দেন, অতঃপর তোমাদেরকে কেয়ামতের দিন একত্রিত করবেন, যাতে কোন সন্দেহ নেই। কিন্তু অধিকাংশ মানুষ বোঝে না। আল জাসিয়া, ৪৫/২৬

৪০। অধিকাংশই অবুঝ। আল হুজরাত ৪৯/৪

সুতরাং

আপনি কি মনে করেন তাদের অধিকাংশ শুনে অথবা বুঝে? তারা চতুষ্পদ জন্তুর মতো বরং আরো পথভ্রান্ত। ফুরকান ২৫/৪৪

অধিকাংশই জানেনা ৩৪/২৮,৩৬

তাদের অন্তর রয়েছে, তার দ্বারা বিবেচনা করে না, তাদের চোখ রয়েছে, তার দ্বারা দেখে না, আর তাদের কান রয়েছে, তার দ্বারা শোনে না। তারা চতুষ্পদ জন্তুর মত; বরং তাদের চেয়েও নিকৃষ্টতর। তারাই হল গাফেল, শৈথিল্যপরায়ণ। আল আ’রাফ ৫/১৭৯

বস্তুত তারা অধিকাংশই অনুমানের উপর চলে। ১০/৩৬

তারা আল্লাহর আয়াতকে বানচাল করার চেস্টা করে। সাবা ৩৪/৫

তারা আল্লাহর আয়াত নিয়ে বিতর্ক করে। ৪০/৩৫,৫৬

অধিকাংশ আল্লাহকে বিশ্বাস করে কিন্তু সাথে শিরিকও করে। ইউসুফ ১২/১০৬

সুতরাং অধিকাংশের কথা মতো চলো তা হলে তারা তুমাকে আল্লাহর পথ থেকে বিচ্যুত করে ফেলবে। আনআম ১১৬

এরাই তারা যারা কুরআনকে প্রলাপ সাব্যস্ত করেছে। ফুরকান ২৫/৩০

Print Friendly, PDF & Email

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।